স্কুলের ফি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে বহাল থাকল হাইকোর্টের রায় ! স্বস্তিতে অভিভাবকরা

0
142

স্কুলের ফি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে বহাল থাকল হাইকোর্টের রায় ! স্বস্তিতে অভিভাবকরা

পিয়ালী সিনহা, নয়া দিল্লি : রাজ্যে অতিমারী পরিস্থিতিতে স্কুলের ফি নিয়ে হাইকোর্টে রায়ই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। বেশ কয়েকদিন আগে হাইকোর্ট জানিয়েছিল বর্তমান পরিস্থিতিতে ২০% ফি কমাতে। এর বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে বেশ কয়েকটি স্কুল।
বর্তমান পরিস্থিতিতে বেসরকারি স্কুলের ফি নিয়ে হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হয়েছিল। তাতে রায় দিতে গিয়ে ১৩ অক্টোবর হাইকোর্টের তরফে জানানো হয়, টিউশন ফিতে ২০% ছাড় দিতে হবে। পাশাপাশি ১ এপ্রিল ২০২০ থেকে যে শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়েছে, তাতে নন অ্যাকাডেমিক ফি নিওয়া যাবে না।
বিচারপতি সঞ্জয় বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিচারপতি মৌসুমী ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় দেন। এই রায়ে বলা হয়েছিল করোনা মহামারী শেষ না হওয়া পর্যন্ত স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি করা যাবে না। অন্যদিকে ফি মকুব করতে অভিভাবকদেরই সরাসরি স্কুলে আবেদন করতে হবে।
এর আগে বেসরকারি স্কুলের ফি নিয়ে করা মামলায় হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিল ছটি স্কুল। কিন্তু বিচারপতি অশোক ভূষণের বেঞ্চ সেই মামলা হাইকোর্টে ফিরিয়ে দিয়ে বলেছিল, হাইকোর্টের রায় পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হওয়া যাবে।
এর আগের নির্দেশে হাইকোর্ট স্কুলের ফি বৃদ্ধি নিয়ে যাবদপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাসের নেতৃত্বে ২ সদস্যের কমিটি গঠন করেছিল। পাশাপাশি স্কুলগুলিতে আয় ব্যায়ের হিসেব জমা দিতেও নির্দেশ দিয়েছিল। হাইকোর্টের এই নির্দেশ যাতে কার্যকর করা না হয়, তার জন্যই আবেদন করেছিল ছটি স্কুল।
বেসরকারি স্কুলগুলির ফি ২০% কমানো নিয়ে হাইকোর্ট রায় দিয়েছিল তার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে ১৯ টি স্কুল। আবেদন তারা বলে যে, হাইকোর্ট ২০% ফি কমানোর যে নির্দেশ দিয়েছে, তা আইনত সম্ভব নয়।
স্কুলের ফি কমানোর ক্ষমতা হাইকোর্টের নেই বলেও দাবি করা হয়েছিল। যদিও সুপ্রিম কোর্টে সেই যুক্তি খারিজ হয়ে যায়। স্কুলগুলির হয়ে সুপ্রিম কোর্টে সওয়াল করেছেন অভিষেক মনু সিংভি এবং কপিল সিবাল।
এদিনের সুপ্রিম কোর্টের রায়ে স্কুলের ফি নিয়ে স্বস্তিতে অভিভাভকরা। তবে হাইকোর্টের তরফে অতিরিক্ত সুবিধা দেওয়ার জন্য যে কমিটি নিয়োগের কথা বলা হয়েছিল, সেব্যাপারে মামলার পরবর্তী শুনানিতে তা স্থির করা হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here