রায়গঞ্জ : “মা” চোখের জলে কোলের শিশুর পেটে ইনসুলিন দিয়ে চলছে,সাহায্য চাইল পরিবার !

0
116
রায়গঞ্জ : “মা” চোখের জলে কোলের শিশুর পেটে ইনসুলিন দিয়ে চলছে,সাহায্য চাইল পরিবার !
BAHRS GLOBAL NEWS, 09 JAN 2019
শান্তি রঞ্জন দাস , রায়গঞ্জ : রায়গঞ্জ শহরের পশ্চিম মিলোন পাড়ার নিবাসী মানিক ভৌমিকের ছোট শিশু হাই সুগারে আক্রান্ত। শিশুর চিকিৎসার সাহায্যের জন্য পাশে দাড়াল মানবাধিকার সংগঠন HUMAN RIGHTS BAHRSWB NATIONALIST FORUM। এবং সকলকে এগিয়ে এসে ছোট শিশুটির চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগিতার অনুরোধ করল মানবধিকার সংগঠনের ওমেন সেলের সম্পাদীকা পম্পা সরকার।

মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষথেকে দুস্থ: পরিবারের হাই সুগার রোগে আক্রান্ত ছোট্ট শিশু মনিশ ভৌমিকের সাহায্যের জন্য সকলকে এগিয়ে আসার পাশাপাশি শিশুর পিতার মোবাইল নম্বর এ ৭৪৭৮৬৮১৪৯২ যোগাযোগ করে যথাসাধ্য আর্থিক সাহায্য করার অনুরোধ করেন।
শিশুটির পিতা জানান, গত ২১ ডিসেম্বর আমার এক বছর বারো মাসের কোলের শিশুটি খেলতে খেলতে হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এরপর তরিঘরি রায়গঞ্জ হাসপাতালে নিয়েগেলে চিকিৎসার পর হাই সুগার ধরা পরে এরপর রায়গঞ্জ থেকে রেফার করেদিলে মালদায় নিয়ে গেলে প্রায় ২১ দিন এসএনসিইউ থাকার পর কিছুটা সুস্থ হলে সেখানকার ডাক্তার ভালো চিকিৎসার জন্য বাইরে নিয়ে যাবার পরামর্শ দেন।
এরপরেই বাড়ি ফিরে এসে ব্যাঙ্গালোরে চিকিৎসার জন্য সাহায্য চেয়েছি সকলের কাছে,কারন আমি কাঠমিস্ত্রীর হেল্পারের কাজ করে অল্পকিছু অর্থ উপার্জন করি যাতে খেয়েপড়ে দিন কাটানো মুশকিল হয়ে পরে। যেটুকু জমানো অর্থ ছিল মালদায় চিকিৎসা করে সর্বাশান্ত হয়ে গেছি। তাই সকলের কাছে আমার ছোট কোলের বাচ্চাটার চিকিৎসা জন্য অর্থ সাহায্যের ভিক্ষা চাইছি। আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমার কোলের বাচ্চাকে বাঁচানো সম্ভব নয়।
চোখে জল নিয়ে ছোট্ট মনিষের মা একই কাতর আবেদন করেন। তিনি বলেন আমি মা হয়ে নিজের সন্তানকে দিনে তিনটি করে ইনসুলিন নাভির চারপাশ দিয়ে দিতে হয়। বুক ফেটেযায় চোখ দিয়ে জল পরে কিন্তু কি করবো বুকের ছেলেকে বাঁচাতে হবেতো। দুস্থ পরিবারটির বাড়িতে ফ্রিজ নেই। ইনসুলিন গুলো ঠান্ডা রাখতে এখন ছোট থার্মকলের আইস বক্স ভরসা।
অপরদিকে মানবাধিকার সংগঠন এর উত্তরবঙ্গের সভাপতি প্রদীপ্ত রায় চৌধুরী জানান, মিলোনপাড়ার নিবাসী দুস্থ পরিবারের মানিক ভৌমিকের ছোট্ট শিশু বয়স এক বছোড় বারো মাস বর্তমানে হাই সুগারের পেসেন্ট। তার বর্তমানে ভালো চিকিৎসার দরকার আর তার জন্য একটা মোটা অঙ্কের অর্থের প্রয়োজন। যা এই দরীদ্র পরিবারের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই সকলের অর্থের সাহায্যের প্রয়োজন।
বুধবার রাতে মানিক বাবুর বাড়িতে পৌঁছে গিয়ে সাধ্যমতো মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষথেকে আর্থিক সাহায্যের কথা জানাই। রবিবার ১২ জানুয়ারি তারা চকিৎসার জন্য বেরোচ্ছে অথচ তাঁদের হাতে এখনো চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত অর্থ নেই।
তাই সকলকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি শিশুটির চিকিৎসার জন্য আমাদের মানবধিকার সংগঠনের পক্ষথেকে। পরিবারটি এতোটাই দুস্থ যে ব্যাঙ্ক একাউন্ট খুলে অর্থ জমানোর সামর্থ টুকুও নেই তাই শিশুটির পিতার এই নম্বরে ৭৪৭৮৬৮১৪৯২ যোগাযোগ করে শিশুটির মুখের দিকে তাকিয়ে সাহায্য করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here