পেগাসাস অভিযোগের সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায় ! ৮ সপ্তাহের মধ্যে রিপোর্ট জমা দেবার নির্দেশ

0
420

তীর্থঙ্কর মুখার্জি, কলকাতা : পেগাসাস স্নুপিং অভিযোগের তদন্তের জন্য সুপ্রিম কোর্ট স্বাধীন বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করল। বুধবার সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকেই পেগাসাস স্পাইওয়্যারের বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য একটি স্বাধীন বিশেষজ্ঞ কমিটি কাজ শুরু করবে। কমিটির কাজকর্ম তত্ত্বাবধান করবেন সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি আরভি রবীন্দ্রন।

পেগাসাস স্পাইওয়্যারের বিরুদ্ধে তদন্তের কাজে তত্ত্বাবধান করবেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। এই কমিটিতে রয়েছেন প্রাক্তন আইপিএস অফিসার অলোক জোশী, ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অফ স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন, ইন্টারন্যাশনাল ইলেক্ট্রো-টেকনিক্যাল কমিশন ও জয়েন্ট টেকনিক্যাল কমিটি চেয়ারম্যান ড. সন্দীপ ওবেরয়। এই তিন সদস্যের কারিগরি কমিটি গঠিত হবে।

গুজরাটের সাইবার সিকিউরিটি, ডিজিটাল ফরেনসিক এবং ন্যাশনাল ফরেনসিক সায়েন্সেস ইউনিভার্সিটির ডিন ডঃ নবীন কুমার চৌধুরী, কেরালার স্কুল অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অমৃতা বিশ্ব বিদ্যাপীঠমের অধ্যাপক ডঃ প্রবাহরণ পি, মহারাষ্ট্রের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সহযোগী অধ্যাপক ডঃ অশ্বিন অনিল গুমাস্তেকে নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কমিটিকে ৮ সপ্তাহ পর রিপোর্ট দিতে বলেছেন আদালত। ভারতের প্রধান বিচারপতি এনভি রমনা কর্তৃক ঘোষিত রায়ে বলা হয়েছে, নিম্নলিখিত বাধ্যতামূলক পরিস্থিতিতে এই আদেশটি পাস করার জন্য আদালত গঠন করা হয়েছিল। তিনি বলেন, আমরা তথ্যের যুগে বাস করছি এবং আমাদের অবশ্যই স্বীকার করতে হবে যে প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ হলেও গোপনীয়তার অধিকার রক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ। শুধুমাত্র সাংবাদিকদের জন্য নয়, সমস্ত নাগরিকের জন্যই তা প্রযোজ্য। পেগাসাস স্নুপিংয়ের তদন্তের জন্য প্রাক্তন শীর্ষ আদালতের বিচারক আরভি রবীন্দ্রনের তত্ত্বাবধানে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বছরের শুরুতেই শিরোনামে উঠে এসেছিল পেগাসাস স্নুপিং রো। সেই পেগাসাস স্নুপিং রো নিয়ে আদালত-নিরীক্ষণে তদন্তের রায় দিল সুপ্রিম কোর্ট। ভারতের প্রধান বিচারপতি এনভি রামানা, বিচারপতি সূর্য কান্ত ও বিচারপতি হিমা কোহলির বেঞ্চ বুধবার এই রায় জানান। এই পেগাসাস মামলায় আবেদনকারীদের মধ্যে ছিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী যশবন্ত সিনহা, সিপিএম এমপি জন ব্রিটাস, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট এমএল শর্মা, এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া এবং সাংবাদিকরাও অন্তর্ভুক্ত ছিলেন।

পেগাসাস সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে অননুমোদিত নজরদারির বিশদ বিবরণ তুলে ধরা হয়েছিল। ইজরায়েলি সংস্থা এনএসও গ্রুপ দ্বারা নির্মিত হয়েছিল এই কাণ্ড-কারখানা। আবেদনকারীরা বলেছেন, সরকার কীভাবে স্পাইওয়্যারের লাইসেন্স পেয়েছে, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে এটি ব্যবহার করেছে এবং যাদের লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে তাদের তালিকা প্রকাশ করা উচিত বলে দাবি করেছিলেন আবেদনকারীরা। এখন তা তদন্ত সাপেক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here