দু’‌বার আগুন, ভ্যাকসিনের উৎপাদন নষ্ট সহ আগুন লাগার ঘটনায় বিপুল ক্ষতির সম্মুখীন সিরাম!

5
169

সুষ্মিতা পাঠক, নয়া দিল্লি : বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন উৎপাদন কেন্দ্র পুনের সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়াতে বৃহস্পতিবার দু’‌বার আগুন লেগে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় পাঁচজন চুক্তিভিত্তিক কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। সিরামের সিইও আদর পুনাওয়ালা এই মুহূর্তে দেশের বাইরে রয়েছেন। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে তিনি তাঁর প্রতিষ্ঠানে আগুন লাগার ঘটনায় মর্মাহত বলে জানান।

পুনাওয়ালা বলেন, ‘‌কথা বলার অবস্থায় নেই। বিসিজি, রোটাভাইরাস ভ্যাকসিনের বহু উৎপাদন আগুনে পুড়ে নষ্ট হয়ে গিয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিআইআই-এর মঞ্জরি প্লান্টের নির্মীয়মান ভবন স্পেশাল ইকোনমি জোনে আগুন লেগে যায়। পুনাওয়ালা জানিয়েছেন যে আগুনে কিছু তলার ক্ষতি হয়েছে। তিনি টুইটের মাধ্যমে সরকারি আধিকারিক ও আম জনতাকে জানিয়েছেন যে এই আগুনে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন উৎপাদনের কোনও ক্ষতি হয়নি।

ব্যাহত হয়নি তার উৎপাদনও। যেহেতু এসআইআইয়ের একাধিক ভবন এই জাতীয় সঙ্কট মোকাবিলায় সংরক্ষণ করা হয়েছিল, তাই অনেকেই এ নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিল। পুনাওয়ালা বলেন, ‘‌মঞ্জরির স্পেশাল ইকোনমি চত্ত্বরের নতুন ভবন ওটা। এই ভবনটি নির্মাণ করা হচ্ছিল বিসিজি ও রোটাভাইরাস ভ্যাকসিনের অতিরিক্ত পরিমাণ উৎপাদনের জন্য এবং এর নির্মাণ কাজও শেষের মুখে ছিল।

আমরা আগুন লাগার কারণ এখনও জানি না এবং ক্ষতির পরিমাণটি শীঘ্রই মূল্যায়ণ করা হবে।এসআইআইয়ের চেয়ারম্যান ও এমডি ডঃ সাইরাস পুনাওয়ালা বলেন, ‘‌এই দুর্ঘটনায় বিপুল পরিমাণ ক্ষতির পাশাপাশি যে প্রাণহানি হয়েছে তা আমরা ভাবতেও পারিনি। আমাদের এই ঘটনা কাঁপিয়ে দিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভ্যাকসিন ডোজ উৎপাদন ও বিশ্বজুড়ে বিক্রির ক্ষেত্রে এসআইআই বিশ্বের বৃহৎ ভ্যাকসিন উৎপাদন কেন্দ্র হিসাবে পরিচিত। এই কেন্দ্রে পোলিও, ডিপথেরিয়া, টিটেনাস এবং পার্টসিস সহ অন্যান্য ভ্যাকসিন এখানে তৈরি করা হয়। পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে যে বিশ্বের ৬৫ শতাংশ শিশুরা অন্তত একটি ভ্যাকসিন নিয়েছে,যেটি সিআইআই থেকে উৎপাদিত। অতিরিক্ত সুবিধাগুলির লাইসেন্স সহ, এসআইআইয়ের একাধিক প্লান্টে ভ্যাকসিন উৎপাদন এবং স্বল্পতম সময়ের মধ্যে বিপুল সংখ্যক ডোজ উৎপাদন সহজতর করার জন্য নমনীয়তা রয়েছে।

কোভিশিল্ড উৎপাদন হচ্ছে সিরামের প্রধান হদপসার প্লান্টে, যেখান থেকে ৩ কিমি দুরত্বে মঞ্জরি প্লান্ট। বৃহস্পতিবার যে ভবনটিতে আগুন ধরে যায় তা আদর পুনাওয়ালার নতুন অফিস ও বোর্ডরুম থেকে খুব কাছে অবস্থিত। জানা গিয়েছে, গত ২৮ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মঞ্জরি প্লান্টে ঘুরে গিয়েছেন। কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন উৎপাদন, সরবরাহ ও লজিস্টিক নিয়ে উৎপাদনকারী দলের সঙ্গে কথাও বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী ওই ভবনের প্রথম তল পরিদর্শন করেন যেখানে বিসিদি ভ্যাকসিন উৎপাদন হচ্ছিল।

5 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here