দিয়েগো মারাদোনা’র চুরি যাওয়া ঘড়ি উদ্ধার হল ভারতের এই রাজ্যে !

0
222

অমিত শর্মা, নয়াদিল্লি : দুবাইয়ে খোয়া যাওয়া মারাদোনার ঘড়ি উদ্ধার হল খোদ ভারতে। শনিবার সকালে অসমের সিভাসাগর জেলা থেকে ওই ঘড়ি উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনার সঙ্গে জড়িত এক ব্যক্তিকেও আটক করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর দুবাইয়ে একটি কোম্পানি’তে সিকিউরিটি গার্ডের পদে কর্মরত ছিলেন। উল্লেখ্য, ওই কোম্পানি-ই প্রয়াত আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি’র সমস্ত জিনিসগুলি নিয়ে একটি সংগ্রহশালা তৈরি করছিলেন। অসম পুলিশের ডিরেক্টর জেনারেল ভাস্কর জ্যতি মোহান্তা জানিয়েছেন, পুলিশের সন্দেহ সীমিত সংস্করণের ওই হ্যাবলট ঘড়িটি ওই ব্যক্তিই চুরি করেছেন। ঘড়িটির মূল্য ভারতীয় মুদ্রায় ২০ লক্ষ টাকা। তাঁর আরও সংযোজন, “কয়েক দিন দুবাইয়ের ওই সংস্থায় কাজ করার পর অগস্টে অসমে ফিরে আসেন ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি। বাবা’র অসুস্থতার কথা বলে কোম্পানি থেকে ছুটি নিয়েছিলেন তিনি।

পুলিশের ওই আধিকারিক জানিয়েছেন, অভিযুক্ত’কে ধরার জন্য তথ্যের সঙ্গে দুবাই পুলিশ ভারতীয় পুলিশের স্মরণাপন্ন হওয়ার পরই তদন্তে নামে অসম পুলিশ। এর পরই শনিবার ওই অভিযুক্ত’কে ভোর চারটের সময়ে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ এবং তাঁর কাছ থেকেই ওই ঘড়ি উদ্ধার হয়।

এই ঘটনায় অসমের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত বিশ্ব শর্মা জানিয়েছেন, এই তদন্তের সঙ্গে জড়িয়ে আছে দুই দেশের পুলিশ এবং তাঁদের যৌথ প্রচেষ্টায়ই এই অপারেশন চলছে। পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা ওই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে নেওয়ার বিষয়ে কাগজপত্র তৈরি করা হচ্ছে, এমনটাই খবর। হেমন্ত বিশ্ব শর্মা টুইট করে ঘড়ি এবং অভিযুক্তের ছবি প্রকাশ করেছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকায় আয়োজিত ২০১০ ফিফা বিশ্বকাপে দু’টি হ্যাবলট ঘড়ি পরে সাইডলাইনের ধারে দাঁড়িয়ে আর্জেন্টিনা’কে কোচিং করাতে দেখা গিয়েছিল মরাদোনা’কে। ওই সময়ই হ্যাবলট বাজারে এনেছিল মারাদোনা বিগ ব্যাং ক্রোনোগ্রাফ লিমিটেড এডিশন। ওই ঘড়িতে রয়েছে মারাদোনার একটি ছবি। পাশাপাশি মারাদোনার সই এবং জার্সি নম্বরও রয়েছে ঘড়ির ডায়ালে।

গত বছর ২ নভেম্বর আর্জেন্টিনার লা প্লাটা হাসপাতালে ভর্তি হন দিয়েগো মারদানা। এর পরের দিনই মারাদোনার মস্তিস্কে অস্ত্রপোচার হয়। সফল অস্ত্রপোচারের পর ১২ নভেম্বর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এর দু’সপ্তাহের মধ্যে হার্ট অ্যাটক হয় মারাদোনার এবং ঘুমের মধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বিশ্ব ফুটবলের রাজপুত্র।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here