জারি সতর্কতা,পরবর্তী নিশানা ওড়িশা, বাংলাতেও কি হানা দেবে পঙ্গপাল! কোথা থেকে এদের প্রবেশ জানুন

0
287

জারি সতর্কতা,পরবর্তী নিশানা ওড়িশা, বাংলাতেও কি হানা দেবে পঙ্গপাল! কোথা থেকে এদের প্রবেশ জানুন

BAHRS GLOBAL NEWS, 28 MAY 2020
তীর্থঙ্কর মুখার্জি, নয়া দিল্লি : আমফান ,করোনা এই দুই বিপদের পর নতুন বিপদ দেখা দিয়েছে দেশজুড়ে। তা হল পাকিস্তান থেকে আগত পঙ্গপালের দৌরাত্ম উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যে এই পঙ্গপাল ফসলের প্রচুর ক্ষতি করেছে। এবার সেই পঙ্গপালের দল ওড়িশায় প্রবেশ করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
ওড়িশা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্গত ডিরেক্টরেট অফ এক্সটেনশন এডুকেশনের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে কৃষকদের সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানানো হয়েছে। দেশের উত্তর, পশ্চিম ও উত্তর–পশ্চিম রাজ্যে হামলা চালিয়ে ফসল ও সবজি নষ্ট করে এই এই পতঙ্গ ওড়িশাতেও আসতে পারে।
কৃষকদের বেশ কিছু পদক্ষেপ অনুসরণ করতে বলা হয়েছে
বিজ্ঞপ্তিতে ওড়িশা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রযুক্তির পক্ষ থেকে কৃষকদের বেশ কিছু নির্দেশ পালন করতে বলা হয়েছে, যাতে তারা পঙ্গপালের সঙ্গে মোকাবিলা করতে পারে। রাজ্যের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে বসবাসকারী কৃষকদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে এবং এই বিষয়ে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে সূর্যাস্তের পরে প্রতি একর ফসল এবং গাছপালাতে ৫% নিম বীজ কার্নাল এক্সট্র্যাক্ট (এনএসকেই) ২০০ লিটার স্প্রে করার মতো তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।
যদি কৃষকরা লক্ষ্য করেন যে পঙ্গপালের দল তাঁদের জমির দিকে ধেয়ে আসছে, তবে সেই দলকে রোখার জন্য তাঁরা বাসন বাজানোর মতো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন। রাতের অন্ধকারে পঙ্গপালরা তাদের চলাচল বন্ধ করে সবজি বা গাছের ওপর বসে যায়, সেই সময় কৃষকরা সেই গাছের ডাল বা ফসল কেটে অথবা নিরাপদ কোনও স্থানে আগুন ধরিয়ে পঙ্গপালদের তাড়াতে পারে।
প্রসঙ্গত, গত মাসে ভারতে পঙ্গপালের দল ঢোকে পাকিস্তান থেকে। যা বহু রাজ্যের কৃষকদের নিদ্রাহীন রাত দেয়। বর্ষার আগমনের আগে গুজরাত, রাজস্থান, পাঞ্জাব এবং উত্তরপ্রদেশের মতো অসংখ্য রাজ্যগুলিতে পঙ্গপালের আক্রমণে মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। গ্রামের পাশাপাশি দিল্লির মতো শহরেও পঙ্গপালের দৌরাত্ম্যের সাক্ষী থেকেছে শহরবাসী।
তবে আশঙ্কা করা হচ্ছে ওড়িশায় পঙ্গপালের দল ঢুকলে তার প্রভাব পশ্চিমবঙ্গেও পড়তে পারে। এ রাজ্যে কৃষিজমি নেহাত কম নয়। যদিও আম্ফানের কারণে অধিকাংশ জেলার কৃষিজমি জলের তলায় রয়েছে। কিন্তু তাও যে কয়েকটা বেঁচে রয়েছে সেগুলিকেও পঙ্গপালের হাত থেকে বাঁচানো দরকার। যদিও রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এ নিয়ে কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি।
২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে রাষ্ট্রপুঞ্জের খাদ্য ও কৃষি সংগঠন সতর্কতা জারি করে জানিয়েছিল যে পঙ্গপালের দল ভারত সহ দক্ষিণপশ্চিম এশিয়ার দেশগুলিতে কৃষিক্ষেত্র ধ্বংস করতে পারে। ইতিমধ্যেই উত্তরপ্রদেশের ১০টি জেলায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে পঙ্গপাল বহু সবজি ও ফসল ক্ষতি করেছে বলে জানা গিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here