কাটমানি ইস্যুতে কংগ্রেস বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্তের বিরুদ্ধে মানহানি মামলার পথে কী উপাচার্য ? পড়ুন

0
244

কাটমানি ইস্যুতে কংগ্রেস বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্তের বিরুদ্ধে মানহানি মামলার পথে কী উপাচার্য ? পড়ুন

BAHRS GLOBAL NEWS, 05 JULY 2019
শান্তি রঞ্জন দাস, রায়গঞ্জ : বুধবার জেলা কংগ্রেস সভাপতি ও বিধায়কের তোলা কাটমানির অভিযোগের বিরুদ্ধে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যা -লয়ের উপাচার্য অনিল ভূইমালী জানিয়েছেন, বিধায়কের আনা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে ও ভিত্তিহীন। রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনও প্রকার আর্থীক দুর্নীতির ঘটনা ঘটেনি। সবকিছুই সরকারি নিয়ম মেনেই করা হয়েছে।

বিধায়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যদাহানী করেছে। তার তোলা অভিযোগুলির প্রমান দাখিলের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিধায়ককে চিঠি পাঠিয়েছে। ওই চিঠিতে বিধায়কে তিনদিনের সময় দেওয়া হয়েছে। ওই নির্দিষ্ট সময়ের ভেতর বিধায়ক তার জবাব না দিলে অথবা বিধায়কের জবাব সন্তোষজনক না হলে বিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল জরুরী মিটিং ডেকে পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য সিদ্ধান্ত গ্রহন করবে। প্রয়োজনে তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলাও দায়ের করা হতে পারে বলে জানা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অনিল ভূইমালী।

অন্যদিকে বুদ্ধিজীবী মহল খুব একটা ভালো চোঁখে নেননি বিষয়টি। কারন তাঁদের মতে কোন প্রমাণ না পেশ করে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধে সরাসরি এহেন অভিযোগ শিক্ষা ব্যবস্থাকে কালিমালিপ্ত করে যা শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য এক প্রকার অশনি সংকেত। তারা এউ বলেন, শিক্ষাপ্রতষ্ঠানে সর্বদা স্বচ্ছতা থাকাই শ্রেয়।

অপরদিকে ,জেলাজুড়ে কাটমানির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে উত্তরদিনাজপুর জেলা কংগ্রেসের পক্ষ থেকে জেলাশাসকের দপ্তরে স্মারকলিপি জমা দেয়। জেলা কংগ্রেসের সভাপতি তথা বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত অভিযোগ তুলেছেন, রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘ দিন ধরে আর্থীক দুর্নীতি চলছে স্বয়ং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অনিল ভূইমালী সরাসরি এই আর্থীক কেলেঙ্কারির সাথে যুক্ত রয়েছেন।

তাঁর আরো অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিভিন্ন রকম উন্নয়নমূলক কাজ থেকে শুরু করে কর্মী নিয়োগ ও ডিগ্রী প্রদানের ব্যাপারে লক্ষ লক্ষ টাকার কাটমানির সাথে যুক্ত। আগামী অধিবেশনে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের এই আর্থীক দুর্নীতির বিষয়টি বিধানসভায় উত্থাপন করা হবে বলে জানায় কংগ্রেস বিধায়ক মোহিত সেনগুপ্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here