কল্পতরু বাজেট মমতার, ইংরেজি মাধ্যম স্কুল থেকে ২০ লক্ষ পাকা বাড়ি, বিনামুল্যে রেশন! এক নজড়ে

0
294

তীর্থঙ্কর মুখার্জি, কলকাতা : সামনেই বিধানসভা ভোট। আর এই ভোটের আগে একবারে কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একদিকে একগুচ্ছ নয়া প্রকল্পের ঘোষণা করলেন অন্যদিকে, কর্মসংস্থানে নয়া দিশা দেখালেন মুখ্যমন্ত্রী। একই সঙ্গে শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও বাজেটে প্রস্তাব রাখলেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। তবে প্রযুক্তিখাতে ঢালাও বরাদ্দ পশ্চিমবঙ্গকে নয়া পথ দেখাবে বলে মনে করছে বণিকমহল।

তবে সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে বলে ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, ৩০ জুন ২০২১ সাল পর্যন্ত যে বিনামূল্যে রেশন দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। সেই ব্যবস্থা অর্থাৎ ২০২১ সালের ৩০ জুনের পরেও চলবে বলে অন্তবর্তী বাজেট পেশের সময় জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। অর্থাৎ এদিন যা বলেছেন তাতে স্পষ্ট রাজ্যের মানুষ আপাতৎ বিনামূল্যেই রেশন পাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণায় খুশি সাধারণ মানুষ।

হোক না অন্তর্বর্তী বাজেট ৷ কিন্তু ভোটের আগে রাজ্যবাসীর মন জয় করে নিলো এই বাজেট ৷ বিশেষ জোর দিলেন তপশিলি জাতি এবং আদিবাসীদের মন জয়ে৷ বাদ যায়নি হিন্দিভাষী, নেপালি থেকে শুরু করে অন্যান্য ভাষাভাষি মানুষও৷ এ দিন আদিবাসী এবং তফশিলি জাতিদের জন্য সব মিলিয়ে কয়েকশো নতুন স্কুল তৈরির ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তার মধ্যে রয়েছে আগামী তিন বছরের মধ্যে তফশিলি জাতি এবং আদিবাসীদের জন্য ১০০টি নতুন ইংরেজি মাধ্যম স্কুল৷ এই স্কুলগুলির জন্য নিয়োগ করা হবে ৩০০ পার্শ্বশিক্ষক ৷

এর পাশাপাশি অলচিকি ভাষাতেও রাজ্যে ৫০০টি নতুন স্কুল তৈরি করা হবে৷ অলচিকি ভাষার এই স্কুল গুলির জন্য নিয়োগ করা হবে দেড় হাজার প্যারা টিচার৷ এর ছাড়াও নেপালি, হিন্দি ভাষাতেও নতুন স্কুল এবং শিক্ষক নিয়োগের ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ সব মাদ্রাসাই রাজ্যের অনুদান পাবে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এই সমস্ত প্রকল্পের জন্য ২০০ কোটি টাকার বেশি বরাদ্দ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

এর পাশাপাশি আদিবাসী, তফশিলি জাতিদের জন্য ২০ লক্ষ পাকা বাড়ি তৈরির ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, যত কাঁচা বাড়ি আছে সব পাকা করা হবে৷ এর জন্য মোট দেড় হাজার কোটি বরাদ্দ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

লোকসভা নির্বাচনে শাসক দলের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন আদিবাসী, তফশিলিরা৷ বিধানসভা নির্বাচনের আগে তাই তাঁদের মন জয়ে মরিয়া চেষ্টা করলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে শুধু আদিবাসী বা তফশিলি জাতি নয়, বয়স্কদের ভাতা থেকে শুরু করে পার্শ্বশিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি বা উড়ালপুল নির্মাণ- সবক্ষেত্রেই হাত উপুড় করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here