করোনা আবহেও বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপুজো হচ্ছে ! নিয়ম বেঁধে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

0
156

করোনা আবহেও বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব দুর্গাপুজো হচ্ছে ! নিয়ম বেঁধে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

তীর্থঙ্কর মুখার্জি, কলকাতা : নেতাজি ইন্ডোরে পুজো উদ্যোক্তাদের সঙ্গে বৈঠকে উৎসবের বিধি বেঁধে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মণ্ডপ তৈরি থেকে পুজো দর্শন সব কিছুই বেঁধে দিয়েছেন তিনি। এমনকী বিসর্জনেরও নিয়ম বেঁধে দিয়েছেন মমতা। এমনকী পুলিসকেও করোনা নিয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
একুশের ভোটের আগে বড় চ্যালেঞ্জ মমতা সরকারের। পুজো উদ্যোক্তাদের বৈঠকে তাই করোনা আবহে পুজোর গাইডলাইন বেঁধে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। নেতাজি ইন্ডোরে কলকাতার বড় পুজো উদ্যোক্তাদের পাশাপাশি কলকাতা পুলিসের আধিকারিকরাও উপস্থিত ছিলেন বৈঠকে। সকলকে নিয়েই সুষ্ঠু ভাবে দুর্গাপুজো করার রূপ রেখা তৈরি করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যে মোট ৩৭০০০ বেশি পুজো রয়েছে। তারমধ্যে জেলাতে রয়েছে ৩৪, ৪৩৭টি পুজো আর কলকাতা পুলিসের আওতায় রয়েথে ২৫০৯টি পুজো। মহিলা পরিচালিত পুজো রয়েছে ১৭০৬টি।
করোনা রুখতে খোলামেলা প্যান্ডেল করার নির্দেশ দিয়েেছন মুখ্যমন্ত্রী। তিনদিক বিশেষ করে প্যান্ডেলের উপরের অংশ খোলা রাখতে হবে। এন্ট্রি এবং অগজিট সম্পূর্ণ আলাদা রাখতে হবে। কোনও ভাবেই যাতে বিশৃঙ্খলা তৈরি না হয় প্যান্ডেলের ভেতরে সেকারণে দাগ কেটে পুজোর লাইন করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
পুজো দেখতে হলে মাস্ক এবং স্যানিটাইজার আবশ্যিক করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। পুজো উদ্যোক্তাদের মাস্ক এবং স্যানিটাইজার রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। মাস্ক ছাড়া যাতে কেউ মণ্ডপে প্রবেশ না করে সেদিকে নজর রাখতে হবে। অর্ধেক কিলোমিটার আগে থেকে স্যানিটাইজ করতে হবে দর্শনার্থীদের। তার জন্য বাড়তি ভলেন্টিার নিয়োগের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
দুর্গাপুজোর পরে যাতে সংক্রমণ না ছড়ায় তার জন্য পুজোর নিয়মও বেঁধে দিয়েছেন মমতা। পুস্পাঞ্জলির ক্ষেত্রে ২-৩ দফায় আয়োজন করতে বলা হয়েছে। বাড়ি থেকে ফুল বেলপাতা আনার পরামর্শ দিয়েছেন। প্রসাদ বিতরণের ক্ষেত্রেও দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ভলেন্টিয়ারদেৎ ফেস শিল্ড দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সিঁদুর খেলাতেও সংযত থাকার বার্তা দিয়েছেন মমতা। ২-৩ বারে সিঁদুর খেলার আয়োজন করতে বলেছেন তিনি।
বিসর্জনের ক্ষেত্রেও নিয়ম বেঁধে দিয়েছেন। একদিনে বিসর্জন করা যাবে না। আলাদা আলাদা দিনে বিসর্জন করতে হবে। তার তালিকা তৈরি করে দেবে পুলিস। একই সঙ্গে ঘাটগুলিতে পর্যাপ্ত আলো এবং স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এবার পুজো কার্নিভাল হবে না ঘোষণা করা হয়েছে। পুজোর সময় ক্লাবগুলি অনুষ্ঠান করতে নিষেধ করা হয়েছে।
তৃতীয়া থেকেই রাতে পুজো মণ্ডপে দর্শন করতে পারবেন শহরবাসী। তৃতীয় থেকে একাদশী পর্যন্ত প্রতিমা দর্শনের অনুমতি দিয়েছেন মমতা। উদ্বোধনের ক্ষেত্রে ছোযট আয়োজন করতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে ভার্চুয়াল উদ্বোধন করার পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পুরস্কার বিতরণের ক্ষেত্রেও ভার্চুয়াল আয়োজনের কথা বলা হয়েছে। মণ্ডবে মণ্ডপে পুরস্কার দিতে হলে সকাল ১০টা থেকে ৩টে পর্যন্ত আয়োজন করার কথা বলা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here