করোনাকে জয় করে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেন বর্ষীয়াণ অভিনেত্রী সন্ধ্যা রায়! স্বস্তি ফিরল টলি মহলে

0
603

বিকাশ সিং , কলকাতা : করোনাকে জয় করে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেন বর্ষীয়াণ অভিনেত্রী সন্ধ্যা রায় । গত ৮ই মে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বর্ষীয়াণ টলি অভিনেত্রী তথা তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ সন্ধ্যা রায় উডল্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি হন। বেশ কিছুদিন ধরে সর্দি-জ্বরে ভোগছিলেন তিনি। কোভিড ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন অক্সিজেন স্যাচুরেশন ওঠা নামা করতে থাকায় উদ্বেগে ছিলেন পরিবারের সকলে। চিন্তায় ছিল টলিউড মহলও।

ডঃ প্রসূন মিত্র তাঁর চিকিৎসার দায়িত্বে ছিলেন। আজ তিনি জানান গতোকালই তাঁর পুনরায় করোনা টেস্ট করালে তা নেগেটিভ আসে। এখোন উনি ভাল আছেন। কিন্তু বয়স টা বেশি হওয়ায় তাঁকে বেশ কিছুদিন রেস্ট নেবার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সন্ধ্যা রায় ছাড়াও টলিপাড়ায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বেশ কিছু অভিনেতা অভিনেত্রী। কিন্তু বর্ষীয়াণ টলি অভিনেত্রীর বয়স ৮০ বছর হওয়ায় চিন্তায় ছিল টলিউডের সকলেই।

১২ টার নাগাদ অ্যাম্বুলেন্সে করে নিজের বাড়িতে ফিরলেন সন্ধ্যা রায়

শুক্রবার তাঁর করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পরেই তাঁর চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা ডাক্তারবাবু সন্ধ্যা রায়ের সঙ্গে একটি ছবি তুলে তা পোস্ট করেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

সন্ধ্যা রায়ের অসুস্থ হওয়ার পরেই তাঁর পরিবারের তাঁর ভাই পরিমল রায় হাসপাতাল ও বাড়ি ছুঁটো ছুটি করেছেন। পরিবারের মতো পাশে পেয়েছে প্রাক্তন সাংসদের বর্তমান PSO দেবপ্রসাদ দেব(দেবু) কে। আজ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরায় খুশি সকলেই। উল্লেখ্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের খুব প্রিয় সন্ধ্যা রায় প্রথমবার মমতার অনুরোধে পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে লড়াই করে সাংসদ হয়ে আসেন।

ষাঠের দশকে সন্ধ্যা রায়ের অভিনিত কিছু জনপ্রিয় গান

কিন্তু পরেরবার বয়সজনিত কারণে দল তাঁকে আর লড়াই করতে দেয়নি। তবে তাঁর দেহরক্ষীদের তাঁর দায়িত্বে রেখে দেন মমতা। সাংসদের কাজ না থাকলেও কাজের মানুষ ঘরে বসে থাকেন কি করে। এরপর ছোট টিভির পর্দায় অভিনয় করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন তিনি। মন সাথ দিলেও শরীর তাকে সাথ দেয়নি। করোনাকে জয় করে তাঁর ঘর বাপসী স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে সকলে। তিনি সুস্থ থাকুন, ভাল থাকুন, এই কামনাই করেছেন সকলে।

তাঁর অভিনিতো বাংলা ছবি গুলির মধ্যে জনপ্রিয় ছবি গুলি হল চিঠি , মনিহার , আগমন ,পালঙ্ক। এছাড়াও অনেক ভস্লো ভালো ছবি তিনি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন। ১৯৬২ সালে তাঁর চলচিত্রের জগতের কেরিয়ার শুরু করেন তিনি। এরপর আর পেছন ফিরে তাঁকাতে হয়নি তাঁকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here