এক বৈঠকেই ঘুরে গেল খেলা, শুভেন্দুর সঙ্গে তৃণমূলের দূরত্ব ঘুচিয়ে দিল অভিষেক !

11
400

এক বৈঠকেই ঘুরে গেল খেলা, শুভেন্দুর সঙ্গে তৃণমূলের দূরত্ব ঘুচিয়ে দিল অভিষেক !

তীর্থঙ্কর মুখার্জি, কলকাতা : শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর কোন পথে হাঁটবেন, তা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছিল। শুভেন্দু ২৪ ঘণ্টা আগেই বলেছিলেন, এবার সেই পথেই হাঁটব যে পথে গেলে আমাকে আর হোঁচট খেতে হবে না। তারপরই ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে গেল খেলা। শুভেন্দু অধিকারী ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় পাশাপাশি বৈঠকে গলল বরফ। তৃণমূলের দাবি, শুভেন্দু দলেই থাকছেন।
শুভেন্দু অধিকারী দলে রাখতে আগ্রহী ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই তিনি দায়িত্ব দিয়েছিলেন সৌগত রায়কে। তাই শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দেওয়ার পরও তিনি তৃণমূলে থাকবেন এ ব্যাপারে আশাবাদী ছিলেন সৌগত রায়। বলেছিলেন, আলোচনার দুয়ার খোলা রয়েছে এখন। সেই আলোচনাই সমস্যা সমাধানের রাস্তা দেখাল।
সৌগত রায়ের সঙ্গে শুভেন্দুর বৈঠকের কথা শনিবারও উঠেছিল। কিন্তু তা বলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে শুভেন্দুর বৈঠক হবে, তা ভাবেনি রাজনৈতিক মহল। সৌগত রায় উভয়কে পাশাপাশি বসিয়ে মাস্টারস্ট্রোক দিয়েছেন। সৌগত রায় বলেছেন, জরুরি ছিল উভয়কে মুখোমুখি বসানো।
সৌগত রায়ের সঙ্গে প্রথম বৈঠকে শুভেন্দু অধিকারী টার্গেট করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরকে। শুভেন্দু বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সুব্রত বক্সির হাতে যখন দলের রাশ ছিল, তখন কোনও অসুবিধা ছিল না। কিন্তু অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোর যেভাবে দল চালাচ্ছিলেন তা মেনে নেওয়া যায় না।
শুভেন্দু অধিকারী বেশ কতকগুলি শর্ত দিয়েছিলেন তৃণমূলে থাকতে। সর্বোপরি তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছিলেন। মমতার সঙ্গে কথার আগেই শুভেন্দু মন্ত্রিত্ব ছেড়ে বার্তা দিয়েছিলেন। তারপর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই মন্ত্রিত্ব নিজের হাতে রেখে শুভেন্দুর ফেরার অপেক্ষায় ছিলেন।
শুভেন্দু শেষপর্যন্ত সৌগত রায়ের দাবিমতো তৃণমূলের সঙ্গে বৈঠকে বসলেন। সর্বোপরি বসলেন তাঁদের সঙ্গে, যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল শুভেন্দুর। অভিষেক-পিকের সঙ্গে বৈঠক করে শুভেন্দু পারতপক্ষ  বুঝিয়ে দিলেন তিনি তৃণমূলকে ভালোবাসেন, তিনি তৃণমূলে থাকতে চাইছেন। সৌগত রায়ও বৈঠক শেষে জানিয়ে দিলেন, শুভেন্দু তৃণমূলেই থাকছেন। এবার যা বলার শুভেন্দু বলবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here