উত্তরবঙ্গে আরও ৩ দিন চলবে ভারী বর্ষণ, দক্ষিণবঙ্গে রথের দিন কেমন থাকবে আবহাওয়া জেনে নিন!

0
603

অনুশিবা সেন : আগামী ৩ দিন উত্তরবঙ্গে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। দক্ষিণবঙ্গে এখনও বর্ষার দািক্ষণ্যের আশা নেই। রথের দিনেও ছিঁটে ফোটা বৃষ্টি আর ভ্যাপসা গরমেই কাটবে দিন। এমনই পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। জুলাই মাসের প্রথম থেকে বর্ষার বর্ষণের তেমন আশা দেখাতে পারেনি হাওয়া অফিস।

উত্তরবঙ্গে ভারী বর্ষণের সতর্কতা

প্রথম থেকেই বর্ষার দাক্ষিণ্য পেয়ে আসছে উত্তরবঙ্গ। জুন মাস জুড়ে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হয়েছে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। প্রায় বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল উত্তরবঙ্গের একাধিক জায়গায়। বিপদ সীমার উপর দিয়ে বইতে শুরু করে তিস্তা, তোর্ষা, রায়ডাক নদীর জল। ভুটান পাহাড়ে বর্ষণের কারণে আরও নদীর জল বাড়তে শুরু করেছে উত্তরবঙ্গে। মাঝে সামান্য বর্ষণ কমলেও ফের ভারী বৃষ্টির সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। আগামী তিনদিন উত্তরবঙ্গের সব জেলাতেই ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভবনার কথা জানিয়েছে হাওয়া অফিস।

রথের দিনে সাধারণত বর্ষণ হয় সব জায়গাতেই কিন্তু এবার সেই সম্ভাবনী নেই বললেই চল। সকাল থেকে মেঘলা আকাশ থাকলেও বর্ষণের তেমন কোনও সম্ভাবনা নেই শহর কলকাতায়। অর্থাৎ ভ্যাপসা গরমেই কাটবে দিন। রথের শহর কলকাতায় বর্ষণের তেমন কোনও সম্ভাবনা নেই। কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকবে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকবে। কাজেই প্যাচপ্যাচে গরম অনুভূত হবে শহরে। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমান বেশি থাকায় অস্বস্তিকর গরম অনুভূত হবে।

দক্ষিণবঙ্গে মৌসুমী বায়ুর প্রবেশ ঘটলেও তেমন শক্তি বাড়াতে পারেনি। সেকারণেই বর্ষার তেমন দাপট এখনও দেখা যাচ্ছে না দক্ষিণবঙ্গে। রথের দিনে দক্ষিণবঙ্গের কোনও জেলাতেই তেমন ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা নেই। কয়েকটি জেলায় হালকা থেকে মাঝারি বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। বর্ষণ হলেও ভ্যাপসা গরম জারি থাকবে। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকায় আর্দ্রতা জনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। জুন মাসে দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতই বর্ষার ঘাটতি দেখা গিয়েছে।

বিধ্বস্ত উত্তর পূর্ব

এদিকে উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলি বর্ষণে বিধ্বস্ত। অসমে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়ছে। গতকাল মণিপুরে প্রবল বর্ষণে ভয়াবহ ধস নমেছে। কমপক্ষে ১৪ জন মারা গিয়েছেন ধসে। নিখোঁজ ৪৫ জন। তাঁদের উদ্ধারে কাজ করছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রীকে ফোন করে সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here