আলোচনা ছাড়াই ধ্বনি ভোটে লোকসভায় পাস কৃষি আইন বাতিলের বিল! হট্টগোলে মুলতুবি অধিবেশন

0
313

পিঙ্কি শর্মা, নয়াদিল্লি : টার্গেট পূরণ করল মোদী সরকার। লোকসভা অধিবেশনের প্রথম দিনেই পাস হয়ে গেল কৃষি আইন বাতিলের বিল। বিরোধীদের তুমুল হট্টগোলের মাঝেই আলোচনা ছাড়াই ধ্বনি ভোটে পাস হয়ে গিয়েছে কৃষি আইন বাতিলের বিল। তারপরেই দুপুর ২টো পর্যন্ত মুলতুবি করে দেওয়া হয় লোকসভা অধিবেশন।

ধ্বনি ভোটে পাস হয়ে গেল কৃষি আইন বাতিল বিল। বিরোধীরা আলোচনার দাবিতে সরব হয়েছিলেন। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভও দেখান তাঁরা। বিরোধীদের বিক্ষোভের কারণে প্রথমে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মুলতুবি করে দেওয়া হয়েছিল লোকসভা অধিবেশ। দুপুর ১২টায় ফের অধিবেশন শুরু হতেই প্রথমে কৃষি আইন বাতিল বিল পেশ করেন কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র তোমর। সঙ্গে সঙ্গে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিরোধীরা। তুমুল হট্টগোলের মধ্যেই আলোচনা ছাড়াই ধ্বনি ভোটে পাস হয়ে যায় কৃষি আইন বাতিলের বিল। শীতকালীন অধিবেশনের আগে থেকেই এর জন্য প্রস্তুতি সেরে রেখেছিল মোদী সরকার।

বিরোধীদের দফায় দফায় বিক্ষোভ এবং বয়কটের কারণে বাদল অধিবেশন পূর্ন সময়সীমা পর্যন্ত করা যায়নি। নির্ধারিত সময়ের আগেই শেষ করে দিতে হয়েছিল বাদল অধিবেশন। সেকারণে শীতকালীন অধিবেশনের শুরুর দিনেই প্রধানমন্ত্রী বিরোধীদের অনুরোধ করেছিলেন, তাঁরা যেন হট্টগোল না করে শীতকালীন অধিবেশন চলার সুযোগ করে দেন।

সরকার সব প্রশ্নের উত্তর দিতে রাজি রয়েছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী সেই অনুরোধে যে কান দেননি বিরোধীরা তা প্রমাণ হয়ে গেল প্রথম দিনেই। অধিবেশন শুরু হতেই বিরোধীরা হট্টগোল শুরু করেন। তার জন্য প্রথমে দুপুর ১২টা পর্যন্ত মুলতুবি করে দেওয়া হয় লোকসভা অধিবেশন। দ্বিতীয় দফায় অধিবেশন শুরু হলেও হট্টগোল থামেনি। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তাঁরা। শেষ পর্যন্ত কৃষি আইন বাতিলের প্রস্তাব ধ্বনি ভোটে পাস করিয়েই ফের দুপুর ২টো পর্যন্ত অধিবেশন মুলতুবি করে দেন স্পিকার।

কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্তের পর বিরোধীরা কোন রণকৌশলে শীতকালীন অধিবেশনে চলবেন সেদিকে তাকিয়ে ছিল রাজনৈতিক মহল। অধিবেশন শুরু হতেই কংগ্রেস কৃষি আইন বািতলের সিদ্ধান্ত নিয়ে আলোচনা দাবি করেছে। কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী অভিযোগ করেছেন, মোদী সরকার কোনও রকম আলোচনা না করেই কৃষি আইন পাস করেছিল।

আবার কোনও রকম আলোচনা না করেই সেই তিনটি আইন বাতিলের বিল পাস করিয়েছে। সংসদে বিরোধীদের নিষ্ক্রিয় করে রাখার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। এদিক সংসদ অধিবেশন শুরুর আগে পার্লামেন্ট চত্ত্বরে গান্ধীমূর্তির পাদদেেশ মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায় কংগ্রেস, নেতৃত্বে ছিলেন সোনিয়া গান্ধী।

গুরু নানক জয়ন্তীতে ঐতিহাসিক ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কৃষকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়ে তিনি কৃষি আইন বাতিলের সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন। তারপরেই তড়িঘড়ি মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকে কৃষি আইন বাতিলের অনুমোদন দেওয়া হয়। তারপরেই লোকসভা অধিবেশনের প্রথম দিনেই কৃষি আইন বাতিলের বিল ধ্বনি ভোটে পাস করানো হয়েছে। বিরোধীদের কোনও হট্টগোলে পাত্তা না দিয়েই এই বিল পাস করানোর টার্গেট নিয়ে রেখেছিল মোদী সরকার এমনই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here